রবিবার ; জুলাই ১১, ২০২০ ; আষাঢ় ২৭, ১৪২৭
আসছে
  • পাপুল কাণ্ডে কুয়েতের সেনা কর্মকর্তা গ্রেফতার
  • রিজেন্ট গ্রুপ চেয়ারম্যান সাহেদের পাসপোর্ট জব্দ
  • কুমিল্লায় ১৯ হাজার ইয়াবাসহ হানিফ বাসের চালক আটক
  • কুমিল্লার গোমতী নদীতে নৌকা ডুবে নিখোঁজ দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার

প্রাসংঙ্গিক সংবাদ

2 Comments

  1. 1

    MD MAHFUJUL ISLAM

    অনেক বেশী পুরস্কার পেয়েছে সায়েহামা

    যশোহর মনিরামপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার ভুমি সায়েহামা হাসান করোনা প্রতিরোধে সরকারের লকডাউন কর্মসুচীর অংশ হিসেবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে গিয়ে দুইজন সিনিয়র নাগরিককে কান ধরে উঠাবসার বিষয়টি বেআইনী হয়েছে এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। এর জন্য তার বিরুদ্ধে তদন্তপুর্বক বিধিগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এটি স্বাভাবিক, এ নিয়ে কারো দ্বিমত নেই। কারণ প্রত্যেককে তার কাজের দায়িত্ব নিতে হবে।

    কিন্তু এটিকে কেন্দ্র করে দেশের সুশীল সমাজ, সরকারের বিভিন্ন সার্ভিসের শ্রদ্ধাস্পদ কর্মকর্তাবৃন্দ যে ভাবে একজন নারীকে উপস্থাপন করেছেন তা সভ্য সমাজের জন্য কলংক। সুশীল সমাজ, সরকারের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ ( যারা বিদ্বেষমুলক বিবৃতি দিয়েছেন) জানতে চাইলোনা প্রকৃত ঘটনাটি কি?

    ইতোমধ্যে বাংলাদেশ এডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন (বাসা) এর ফেস বুক পেজে শায়কুল লিখেছেন এক স্থানীয় রিপোর্টার তার কাছে ৪টা নামজারী করতে এছেছিলো, দেয়নাই বলে সে ছবি তুলে ভুয়া ওয়েবসাইট খুলে এ কাজটি করেছে। ইতোমধ্যে সায়েহামা বিবৃতিতে বলেছে যে সে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা কালে ঐ দুজন লোক নিজের থেকেই কানে ধরে ফেলে এবং সে এটি মোবাইলে ধারণ করে রাখে ডকুমেন্টস এর জন্য।

    যাহউক উপর্যুক্ত অবস্থার প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং ওসি গিয়ে ঐ দুজন সিনিয়র নাগরিকের কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন এই কাজটি যথার্থ হয়েছে কারণ রাষ্ট্র তার নাগরিকের কাছে ক্ষমা চাইতেই পারে এবং চাওয়াটাই সভ্য রাষ্ট্রের সুচক। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সায়েহামাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে। এটিও সঠিক আছে কারণ সরকার জনস্বার্থে তার কর্মচারীদের বদলী করতেই পারে।

    বর্তমানে করোনা প্রতিরোধে মাঠ প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী নৌবাহিনী, চিকিৎসকবৃন্দ কাজ করছে। তাছাড়া সংবাদিকবৃন্দ এবং স্বেচ্ছাসেবীবৃন্দ কাজ করছে আমাদের সকলের কল্যাণের জন্য। কাজ করতে গিয়ে ভুলভ্রান্তি হবেই, এটাই স্বাভাবিক। এ ভুলকে মুল্যায়ন কত্রতে হবে, ভুলের উদ্দেশ্য জানতে হবে তারপরে মতামত দিতে হবে।

    মোবাইল কোর্ট একটি স্পর্শকাতর বিষয়। এটি পরিচালনা যিনি করেন তাকে অনেক সময় উপস্থিতমতো সিদ্ধান্ত নিতে হয়, সেক্ষেত্রে তার অভিজ্ঞতা, বয়স একটি গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করে। আলোচ্য কর্মকর্তা একজন নবীন কর্মকর্তা। তার এ ভুলের জন্য এভাবে তাকে শাস্তি দেয়াটা ঠিক হয়নাই। তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ, তার ব্যক্তিগত ফোন নাম্বার দিয়ে দেয়া সহ লেখার মাধ্যমে তার সম্ভ্রমহানি ও ঘটানো হয়েছে। আবার অনেকে তার ব্যক্তিগত জীবনের ও তথ্য চাচ্ছেন। যেগুলো গর্হিত এবং বেআইনী হয়েছে। কারণ ফাঁসীর আসামীকে ও তার বক্তব্য প্রদানের সুযোগ দেয়া হয়।

    আশার কথা যে তার অনেক সহকর্মী, সুশীল সমাজের অনেক প্রতিনিধি বিষয়টা উপলদ্ধি করতে পেরেছেন এবং সেকারণে গঠনমুলক বিবৃতি ও দিয়েছেন।

    গৌতমবুদ্ধ বলেছেন চার ধরণের কথা ব্যাক্তি ও রাষ্ট্রের জন্য বিপজ্জনক।
    ১) মিথ্যা কথা
    ২)কর্কশ কথা
    ৩)ঝগড়া লাগানো কথা
    ৪) অপ্রয়োজনীয় কথা।

    সায়েহামার ক্ষেত্রে চার ধরনের বাক্যই প্রয়োগ করা হয়েছে, যেটি রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। কারণ এ মুহুর্তে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা করোনা প্রতিরোধে নিজের জীবনকে বাজী রেখে কাজ করে যাচ্ছে, এ ধরণের নেতিবাচক কাজ তাদের মনোবল ভেঙ্গে দেবে, তারা সিদ্ধান্তহীন্তায় ভুগবে, যার জন্য আমাদের অনেক দুর্ভোগে পড়তে হবে। কাজ করতে গেলে ভুল হবে এটি মেনে নেয়ার মতো মানসিকতা আমাদের থাকতে হবে। দেখতে হবে ভুলটি কোন উদ্দেশ্যে করেছে। সে কারণে আইনে ও “সরল বিশ্বাস” কথাটির উপর গুরুত্ব দিয়েছে।

    আমার আশা করি আমাদের এ তরুণ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে যে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা হচ্ছে তার মাধ্যমে লক ডাউন কর্মসুচী বাস্তবায়িত হয়ে জাতি করোনা মুক্ত হবে। ইংরেজ কবির ভাষায়,

    ” শীত যদি আসে
    বসন্ত কি দুরে।”

    আমি আমার কর্মজীবন এবং ব্যক্তিজীবন পুরোটাই মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করেছি এবং আমি বিশ্বাস করি ভালো ব্যবহারই মনুষ্যত্বের পরিচয়, শ্রেষ্টত্বের পরিচয়। আমার সাথে যারা কাজ করেছে তাদেরও এ শিক্ষাই আমি দিয়েছি। তার জন্য বহু জায়গায় আমাকে এ ভদ্রতার খেসারত দিতে হয়েছে কিন্তু তারপর ও সকল মানুষের প্রতিই আমার সমান শ্রদ্ধা। আমার অনুজদের প্রতিও আমার এ অনুরোধ।

    Reply
  2. 2

    Nasrin

    অনেক বেশী পুরস্কার পেয়েছে সায়েহামা

    যশোহর মনিরামপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার ভুমি সায়েহামা হাসান করোনা প্রতিরোধে সরকারের লকডাউন কর্মসুচীর অংশ হিসেবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে গিয়ে দুইজন সিনিয়র নাগরিককে কান ধরে উঠাবসার বিষয়টি বেআইনী হয়েছে এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। এর জন্য তার বিরুদ্ধে তদন্তপুর্বক বিধিগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এটি স্বাভাবিক, এ নিয়ে কারো দ্বিমত নেই। কারণ প্রত্যেককে তার কাজের দায়িত্ব নিতে হবে।

    কিন্তু এটিকে কেন্দ্র করে দেশের সুশীল সমাজ, সরকারের বিভিন্ন সার্ভিসের শ্রদ্ধাস্পদ কর্মকর্তাবৃন্দ যে ভাবে একজন নারীকে উপস্থাপন করেছেন তা সভ্য সমাজের জন্য কলংক। সুশীল সমাজ, সরকারের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ ( যারা বিদ্বেষমুলক বিবৃতি দিয়েছেন) জানতে চাইলোনা প্রকৃত ঘটনাটি কি?

    ইতোমধ্যে বাংলাদেশ এডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন (বাসা) এর ফেস বুক পেজে শায়কুল লিখেছেন এক স্থানীয় রিপোর্টার তার কাছে ৪টা নামজারী করতে এছেছিলো, দেয়নাই বলে সে ছবি তুলে ভুয়া ওয়েবসাইট খুলে এ কাজটি করেছে। ইতোমধ্যে সায়েহামা বিবৃতিতে বলেছে যে সে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা কালে ঐ দুজন লোক নিজের থেকেই কানে ধরে ফেলে এবং সে এটি মোবাইলে ধারণ করে রাখে ডকুমেন্টস এর জন্য।

    যাহউক উপর্যুক্ত অবস্থার প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং ওসি গিয়ে ঐ দুজন সিনিয়র নাগরিকের কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন এই কাজটি যথার্থ হয়েছে কারণ রাষ্ট্র তার নাগরিকের কাছে ক্ষমা চাইতেই পারে এবং চাওয়াটাই সভ্য রাষ্ট্রের সুচক। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সায়েহামাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে। এটিও সঠিক আছে কারণ সরকার জনস্বার্থে তার কর্মচারীদের বদলী করতেই পারে।

    বর্তমানে করোনা প্রতিরোধে মাঠ প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী নৌবাহিনী, চিকিৎসকবৃন্দ কাজ করছে। তাছাড়া সংবাদিকবৃন্দ এবং স্বেচ্ছাসেবীবৃন্দ কাজ করছে আমাদের সকলের কল্যাণের জন্য। কাজ করতে গিয়ে ভুলভ্রান্তি হবেই, এটাই স্বাভাবিক। এ ভুলকে মুল্যায়ন কত্রতে হবে, ভুলের উদ্দেশ্য জানতে হবে তারপরে মতামত দিতে হবে।

    মোবাইল কোর্ট একটি স্পর্শকাতর বিষয়। এটি পরিচালনা যিনি করেন তাকে অনেক সময় উপস্থিতমতো সিদ্ধান্ত নিতে হয়, সেক্ষেত্রে তার অভিজ্ঞতা, বয়স একটি গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করে। আলোচ্য কর্মকর্তা একজন নবীন কর্মকর্তা। তার এ ভুলের জন্য এভাবে তাকে শাস্তি দেয়াটা ঠিক হয়নাই। তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ, তার ব্যক্তিগত ফোন নাম্বার দিয়ে দেয়া সহ লেখার মাধ্যমে তার সম্ভ্রমহানি ও ঘটানো হয়েছে। আবার অনেকে তার ব্যক্তিগত জীবনের ও তথ্য চাচ্ছেন। যেগুলো গর্হিত এবং বেআইনী হয়েছে। কারণ ফাঁসীর আসামীকে ও তার বক্তব্য প্রদানের সুযোগ দেয়া হয়।

    আশার কথা যে তার অনেক সহকর্মী, সুশীল সমাজের অনেক প্রতিনিধি বিষয়টা উপলদ্ধি করতে পেরেছেন এবং সেকারণে গঠনমুলক বিবৃতি ও দিয়েছেন।

    গৌতমবুদ্ধ বলেছেন চার ধরণের কথা ব্যাক্তি ও রাষ্ট্রের জন্য বিপজ্জনক।
    ১) মিথ্যা কথা
    ২)কর্কশ কথা
    ৩)ঝগড়া লাগানো কথা
    ৪) অপ্রয়োজনীয় কথা।

    সায়েহামার ক্ষেত্রে চার ধরনের বাক্যই প্রয়োগ করা হয়েছে, যেটি রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। কারণ এ মুহুর্তে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা করোনা প্রতিরোধে নিজের জীবনকে বাজী রেখে কাজ করে যাচ্ছে, এ ধরণের নেতিবাচক কাজ তাদের মনোবল ভেঙ্গে দেবে, তারা সিদ্ধান্তহীন্তায় ভুগবে, যার জন্য আমাদের অনেক দুর্ভোগে পড়তে হবে। কাজ করতে গেলে ভুল হবে এটি মেনে নেয়ার মতো মানসিকতা আমাদের থাকতে হবে। দেখতে হবে ভুলটি কোন উদ্দেশ্যে করেছে। সে কারণে আইনে ও “সরল বিশ্বাস” কথাটির উপর গুরুত্ব দিয়েছে।

    আমার আশা করি আমাদের এ তরুণ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে যে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা হচ্ছে তার মাধ্যমে লক ডাউন কর্মসুচী বাস্তবায়িত হয়ে জাতি করোনা মুক্ত হবে। ইংরেজ কবির ভাষায়,

    ” শীত যদি আসে
    বসন্ত কি দুরে।”

    আমি আমার কর্মজীবন এবং ব্যক্তিজীবন পুরোটাই মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করেছি এবং আমি বিশ্বাস করি ভালো ব্যবহারই মনুষ্যত্বের পরিচয়, শ্রেষ্টত্বের পরিচয়। আমার সাথে যারা কাজ করেছে তাদেরও এ শিক্ষাই আমি দিয়েছি। তার জন্য বহু জায়গায় আমাকে এ ভদ্রতার খেসারত দিতে হয়েছে কিন্তু তারপর ও সকল মানুষের প্রতিই আমার সমান শ্রদ্ধা। আমার অনুজদের প্রতিও আমার এ অনুরোধ।

    Sayehama has got much reward

    The action of Sayehama, Assistant Commissioner Land of Manirampur upazila,, to punish the two senior citizens by holding ears by themselves during the operation of mobile court has been illegal no doubt. It is natural that departmental action after inquiry would be taken against her for that and no controversy regarding this is there. Because everyone should have to take her/his responsibility.

    But centering it the civil society, the honourable officers of different department of government have presented the fact in such a way which is a stigma of civilized society. The civil society, the govt officials of different department ( those who have given grudging statements) did not want to know what was the fact?

    In the mean time Shykul has written in the fb page of BASA that a local reporter had wanted to execute four Mutations and as she did not not do it he with evil desire did it opening false website. Dayehama has also taged a statement in which she has expressed that she did not tell them to hold ears rather they willingly held their ears and she photographed it for documentation.

    However, Upazila Nirbahi Officer and OC,giibg there, have sought apology to the two cmsenior citizens which is justified as the States can seek apology to her citizens and this an index of civilized State. Sayehama has been transferred to the office of Divisional Commissioner which has also been justified as government can transfer its servants at any time for public interest.

    At present field administration, police, forces of army, navy, doctors are working to prevent Corona. Besides journalists and volunteers are also working for our welfare. Error is natural in working. This error would be evaluated, its purpose is to be identified and then view is to be expressed.

    Mobile Court is a sensitive issue. He/She has to take instant decision who operstes it, in that sense his/her experience age and experience plays a vital role. The controversial officer is a new officer.It has not been wise to punish her in such a way for her mistake. Bad scolding, tagging her personal number even she has been chastized by writings. Moreover many people want her personal information which have been indecent and illegal. Because the death convict even id heard.
    It is a matter of hope that many colleagues many members of civil society have realizef it and for that reason they have given constructive statements.

    Buddha has stated that four types of uttrances ate dangerous for the individual and the Syate.

    1) Telling lie
    2) harsh words
    3)Words that create quarrels
    4) Unnecessary talkings.

    In the case of Sayehama all four types of utterances have been applied which are detrimental for the State. Because the executive Magistrates are now working in protecting Corona taking their life risks, such negative propaganda would break their morale, they would hesitate in taking decisions for which we are be in trouble. There would be mistakes while working and we shoud prepare our mentalities to accept them. It should be marked in which purpose the mistakes are committed. For that reason “Good faith” has been emphasized in law.

    We expect that the nation would be free from Corona by implementing the “lock down” programme of government through mobile courts executed by our young executive Magistatres. In the words of English poet Shelley,

    ” If winter comes
    Can spring be far behind.”

    During my working and personal life I behaved wrll with the people and I believe good behaviour is the best way for the greatest humanity. Those who had worked with me I gave them such learnings. I had to suffer in many places for such good behaviours but even after that I have equal respect to all people. My request also to my juniors like that.

    Reply

মতামত দিন

সম্পাদকঃ

নাসিমা আক্তার সোমা

বিডিবিএল ভবন ( লেভেল - ৮)
১২ কারওয়ান বাজার সি/এ, ঢাকা,
বাংলাদেশ।

কপিরাইট © ২০২০     পাওয়ার্ড বাই     লালসবুজের কথা